শুক্রবার, ৩০শে অক্টোবর, ২০২০ ইং, ১৪ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ (হেমন্তকাল), ১২ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২ হিজরী |আর্কাইভ|
ঘরে-বাইরে জীবাণুনাশক ছিটালে করোনাভাইরাস মরে না : ডব্লিউএইচও
মে ১৮, ২০২০
ঘরে-বাইরে জীবাণুনাশক ছিটালে করোনাভাইরাস মরে না : ডব্লিউএইচও

নভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে বিশ্বের প্রায় প্রতিটি দেশেই রাস্তাঘাটে স্প্রে করা হচ্ছে বা ছিটানো হচ্ছে জীবাণুনাশক। কিন্তু বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) বলছে, এ জীবাণুনাশক খোলা জায়গায় ছিটালে তাতে করোনাভাইরাস মরে না, বরং এসব জীবাণুনাশক স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর।

এক বিবৃতিতে গতকাল ডব্লিউএইচও জানিয়েছে, খোলা জায়গা, যেমন—বাজার কিংবা রাস্তায় জীবাণুনাশক ছিটালে তাতে করোনাভাইরাসের কিছু হয় না। কারণ, ধুলা ও ইট-পাথরে সে জীবাণুনাশকের উপাদানগুলো নিষ্ক্রিয় হয়ে যায়। বার্তা সংস্থা এএফপি এ খবর জানিয়েছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা আরো জানিয়েছে, যদি ধুলো-ময়লা নাও থাকে, তারপরও জীবাণুনাশকের উপাদানগুলোর পক্ষে কম সময়ের মধ্যে পুরো জায়গায় ছড়িয়ে যাওয়া সম্ভব হয় না। ফলে ওর কার্যকারিতা অনেক কমে যায়। বরং এ জীবাণুনাশক ছড়ানোর ফলে পশু-পাখি থেকে শুরু করে মানুষের স্বাস্থ্যের ক্ষতি হতে পারে।

বিবৃতিতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা আরো জানিয়েছে, কোনো ব্যক্তির ওপর কখনোই জীবাণুনাশক প্রয়োগ করা উচিত নয়। বিশেষ করে ক্লোরিন ও অন্যান্য টক্সিক রাসায়নিক উপাদান মানুষের চোখ ও ত্বকে খারাপ প্রভাব ফেলতে পারে বলে জানানো হয়েছে। ডব্লিউএইচওর বক্তব্য, এ উপাদানগুলো শারীরিক ও মানসিকভাবে ক্ষতি করতে পারে। এমনকি এসব জীবাণুনাশক ছড়ানোর ফলে কোনো ব্যক্তি থেকে করোনাভাইরাস ছড়ানোর আশঙ্কা একটুও কমে না।

কেবল খোলা জায়গায় নয়, বাড়ির ভেতরেও জীবাণুনাশক ছড়িয়ে বিশেষ কোনো লাভ নেই বলেই জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। সংস্থাটি জানিয়েছে, যদি জীবাণুনাশক ছড়াতেই হয়, তাহলে সবচেয়ে ভালো পদ্ধতি হলো, কোনো কাপড়ে নিয়ে তারপর তা দিয়ে মোছা।